ঢাকা,১৬ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল এর জন্মদিন আজ

received_847393172500869.jpeg

সাহেদ আহমদ :: জানুয়ারি ২৬, ২০২১, মঙ্গলবার বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এর ৭৩তম জন্মবার্ষিকী।

জন্মদিনেনিচে সংক্ষেপে মির্জা আলমগীর এর জীবনী তুলে ধরা হলো —বুধবার, ৩০শে মার্চ, ২০১৬, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল–বিএনপি’র ৭ম মহাসচিব এর দায়িত্বে নিয়োজিত হয়েছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এর আগে রোববার, মার্চ ২০, ২০১১ থেকে তিনি দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৮, ২০০৯ বিএনপির ৫ম জাতীয় সম্মেলন পরবর্তী কেন্দ্রীয় কমিটিতে তিনি জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব এর দায়িত্ব পান।

জন্ম
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানুয়ারি ২৬, ১৯৪৮ এ ঠাকুরগাঁও জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা মির্জা রুহুল আমিন ছিলেন একজন সক্রিয় রাজনীতিবিদ এবং সংসদ সদস্য এবং মা ছিলেন একজন সম্ভ্রান্ত গৃহিনী।

ছাত্রজীবন
মির্জা আলমগীর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক ও সন্মান ডিগ্রি অর্জন করেছেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সক্রিয় ছাত্র রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। তিনি তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের, অধুনা বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, একজন সদস্য ছিলেন এবং সংগঠনটির এসএম হল শাখার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানের সময়ে তিনি সংগঠনটির ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি ছিলেন।

কর্মজীবন
১৯৭২ সালে স্বাধীন বাংলাদেশে মির্জা আলমগীর ঢাকা কলেজের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। ৭০’র দশকের শেষের দিকে তিনি বাংলাদেশ সরকারের প্রশাসনে যোগ দেন। সরকারের পরিদর্শন ও আয় ব্যয় পরীক্ষণ অধিদপ্তরে একজন অডিটর হিসেবে কাজ করেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বীরউত্তম এর সরকারের উপ-প্রধানমন্ত্রী এস.এ. বারির একজন ব্যাক্তিগত সচিব ছিলেন, যে পদে তিনি ১৯৮২ সাল পর্যন্ত বহাল ছিলেন। এস.এ. বারি উপ-প্রধানমন্ত্রী হিসেবে পদত্যাগ করার পর মির্জা আলমগীর শিক্ষকতা পেশায় ফিরে যান এবং ১৯৮৬ পর্যন্ত ঠাকুরগাঁও সরকারী কলেজে অর্থনীতির অধ্যাপক হিসেবে শিক্ষকতা করেন।

রাজনৈতিক জীবন
১৯৮৬ সালে পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে মির্জা আলমগীর উনার শিক্ষকতা পেশা থেকে অব্যাহতি নেন এবং সক্রিয় রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। তিনি ১৯৮৮ এ ঠাকুরগাঁও পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।
স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে যখন দেশব্যাপী তুঙ্গে তখন মির্জা আলমগীর বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপিতে যোগ দেন। ১৯৯২ সালে মির্জা আলমগীর ঠাকুরগাঁও বিএনপির সভাপতি মনোনীত হন।

মির্জা ফখরুল ২০০১ সালের অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঠাকুরগাঁও-১ আসনে বিএনপির মনোনয়ন নিয়ে আওয়ামী লীগের রমেশ চন্দ্র সেনের সাথে প্রতিযোগীতা করে বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন। মির্জা আলমগীর পেয়েছিলেন ১,৩৪, ৯১০ ভোট, যা রমেশ চন্দ্র সেনের ভোটের চেয়ে ৩৭ ,৯৬২ ভোট বেশি ছিল।

২০০১ সালের নভেম্বরে নবনির্বাচিত বিএনপি সরকারের মন্ত্রীসভায় মির্জা আলমগীর কৃষি প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান এবং পরে বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন।

মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৮, ২০০৯ বিএনপির ৫ম জাতীয় সম্মেলন পরবর্তী কেন্দ্রীয় কমিটিতে তিনি জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব এর দায়িত্ব পান।

২০১১ সালের মার্চে বিএনপির মহাসচিব খন্দকার দেলওয়ার হোসেন মৃত্যুবরণ করলে চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে রোববার, মার্চ ২০, ২০১১ থেকে দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবের দায়িত্ব দেন।

ব্যক্তিগত জীবন
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দুই মেয়ের জনক। তার স্ত্রী রাহাত আরা বেগম কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করেছেন ও বর্তমানে ঢাকার একটি বীমা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আছেন। তার বড় মেয়ে মির্জা শামারুহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করে এই প্রতিষ্ঠানেই শিক্ষকতা করেছেন। বর্তমানে তিনি অস্ট্রেলিয়ায় পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনের পর কর্মরত আছেন । ছোট মেয়ে মির্জা সাফারুহও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করেছেন। তিনি বর্তমানে ঢাকার একটি স্কুলে শিক্ষকতা করছেন।

মির্জা আলমগীরের বাবা মির্জা রুহুল আমিন একজন আইনজীব ছিলেন এবং ঠাকুরগাঁওয়ে স্বাধীনতার আগে ও পরে একাধিক বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। স্বাধীন বাংলাদেশে মির্জা আমিন বিএনপির রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top

সম্পাদক ও প্রকাশক: এড: মোঃ আব্দুল্লাহ আল হেলাল 01726840304

নির্বাহী সম্পাদক: আব্দুল হামিদ
বার্তা সম্পাদক: মুতিউর রহমান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: সাহেদ আহমদ
উপ-সম্পাদক: ইয়াছিন আলী
উপ-সম্পাদক: ওয়াহিদ মাহমুদ

লেভেল-২, সুরমা টাওয়ার, তালতলা, সিলেট-৩১০০।
০১৭২৬-৮৪০৩০৪
news.sylhetdiganta@gmail.com